সিডনী সোমবার, ১২ই এপ্রিল ২০২১, ২৯শে চৈত্র ১৪২৭


প্রতি পাঁচ জনের একজন অস্ট্রেলিয়ান কর্মক্ষেত্রে ফিরতে উদ্বিগ্ন


প্রকাশিত:
২১ মার্চ ২০২১ ১৩:৪২

আপডেট:
১২ এপ্রিল ২০২১ ১৩:০২

 

প্রভাত ফেরী: "আমি মনে করি আমি অবশ্যই বাড়ীতে নিরাপদ বোধ করছি কারণ এখানে এত লোক নেই, কেবল আমার সঙ্গী এবং আমি।"

কথাটি বলছেন লানা বোগানোভিচ, যিনি সিডনি সিবিডির একটি অফিস ভবনে কাজ করছেন। তিনি বলেন যে বাড়ি থেকে কাজ করার কয়েক মাস পরে, তিনি কাজ করতে যাওয়া বা সহকর্মীদের সাথে কর্মক্ষেত্র ভাগ করে নেওয়ার সময় সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন।

নতুন গবেষণা থেকে জানা গেছে যে প্রতি পাঁচ জনের মধ্যে একজন অস্ট্রেলিয়ান তাদের কর্মক্ষেত্রে ফিরতে উদ্বিগ্ন। এছাড়া আরও অনেক কর্মী অনসাইট কাজে ফিরে আসার প্রক্রিয়ায় আছে। অথচ কর্মীরা সকলের সাথে কাজের জায়গা ভাগ করে নেয়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন।

লানা বোগানোভিচ বলেন, "যখন আমি কাজে ফিরে এসেছি, আমি সারফেস বা কোন কিছুর উপরিভাগ স্পর্শ করার বিষয়ে আরও সচেতন।"

ফ্যান্টাস্টিক সার্ভিসেস গ্রুপের নতুন গবেষণায় প্রকাশিত হয়েছে যে পাঁচ জন অস্ট্রেলিয়ানের মধ্যে দু'জনই তাদের কর্মস্থলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে উদ্বিগ্ন।

একই সময়ে, মহামারীটি শুরু হওয়ার পর থেকে এক চতুর্থাংশেরও বেশি মানুষ জীবাণু সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে, এবং তাদের দুই-তৃতীয়াংশ বাড়ি থেকে দূরে থাকাকালীন কোনও সারফেস স্পর্শ না করার বিষয়ে সচেতন।

ফ্যান্টাস্টিক সার্ভিসেস গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রুন সোভানডাহাল বলেছেন, তাদের গবেষণাটি COVID-19 মহামারী চলাকালীন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার প্রতি অস্ট্রেলিয়ানদের পরিবর্তিত মনোভাবের চিত্র তুলে ধরেছে।

লানা বোগানোভিচ বলেছেন যে COVID-19 বিষয়ক চ্যালেঞ্জগুলি তাকে নিরাপদ কাজের পরিবেশের বিষয়টি নিয়ে আবার ভাবিয়েছে।

"COVID এর সময়ে নিরাপদ কাজের পরিবেশটি কঠোর নীতিমালা তৈরি করছে, যে কোনও সময় সভাকক্ষে কত লোককে অনুমতি দেওয়া হয় তার উপর একটি সীমা দেওয়া আছে।"

নিউ সাউথ ওয়েলস সেফ ওয়ার্কের হেলথ এন্ড সেফ ডিজাইনের পরিচালক জিম কেলি বলেছেন, COVIDSafe পরিকল্পনার সহজ নীতিগুলি প্রয়োগ করে কাজ-কর্মে ফিরে যেতে সহায়তা করতে পারে।

তিনি বলেন, "এটা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ আমরা যেন একটি কভিডসেফ ব্যবসায়িক পরিকল্পনা অব্যাহত রাখি। এর নিয়ম কানুন সহজ, এটি হাত ধোয়া, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা ইত্যাদি বিষয়ে সচেতন করে। "

রুন সোভানডাহাল হ্যান্ডলস, ট্যাপ এবং লাইট সুইচগুলোর মতো যেখানে মানুষের হাতের স্পর্শ বেশি হতে পারে সেগুলো কমিয়ে আনার দিকে নজর দিতে নিয়োগকারীদের উৎসাহিত করেন।

হ্যান্ড স্যানিটাইজার, অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল ওয়াইপ এবং সামাজিকভাবে দূরত্বযুক্ত ডেস্ক কর্মীদের দেয়ার পাশাপাশি মিঃ সোভানডাহাল বলেছেন যে অনেক নিয়োগকর্তা অ্যান্টিভাইরাল স্যানিটাইজেশনে বিনিয়োগ করছেন, যা ফোগিং নামে পরিচিত।

"আমাদের কাছে অ্যান্টিভাইরাল স্যানিটাইজেশন নামে একটি সার্ভিস রয়েছে, যা একটি ফোগিং সার্ভিস। এটি একটি স্প্রে, অ্যান্টিভাইরাল দ্রবণটি বাষ্পীভূত করার একটি সিস্টেম এবং এটি প্রতিটি ক্রেইভিসে যেতে পারে, আমরা কিন্ডারগার্টেনে এবং স্কুলে এটি ব্যবহার করি সুতরাং এটি যথেষ্ট নিরাপদ। তবে এটি অফিসের কাজেও খুব ভাল এবং বিশেষত যেখানে লোকসমাগম বেশি।"

অস্ট্রেলিয়ার COVID-19 মোকাবেলা কার্যকর করতে, Safe Work ডিরেক্টর অফ হেলথ অ্যান্ড সেফ ডিজাইন, জিম কেলি বলেছেন যে কোনও কর্মক্ষেত্রে প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে ফগিংয়ের মতো ডিপ ক্লিনিং সার্ভিস প্রয়োজন।

"কোভিড -১৯ ঝুঁকি পরিচালনায় অস্ট্রেলিয়া অত্যন্ত ভালভাবে কাজ করেছে। এই পর্যায়ে, প্রয়োজন না হলে আপনার পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে অসাধারণ কিছু করার দরকার নেই।"

 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top