সিডনী বৃহঃস্পতিবার, ৬ই মে ২০২১, ২২শে বৈশাখ ১৪২৮

এক অদৃশ্য শত্রু : শিবব্রত গুহ


প্রকাশিত:
৩ মে ২০২১ ১৫:১৯

আপডেট:
৬ মে ২০২১ ০৫:৫৫

 

পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ জীবের নাম হল মানুষ।  মানুষের মধ্যে আছে অনেক আশ্চর্য গুণাবলী। সেই আদিম যুগ
থেকে শুরু করে, আস্তে আস্তে মানুষ,  নিজেকে পরিবর্তিত করেছে। গুহাবাসী জীবন পরিত্যাগ করে, মানুষ আজ পৌঁছেছে উন্নতির চরম সীমায়। যা ছিল মানুষের স্বপ্নের অতীত।
মানুষ তার মেধা  শক্তিকে কাজে লাগিয়ে,  নিজেকে এই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ জীবে পরিণত করেছে। সে কর্তৃত্ব করে চলেছে এই বিশ্বের অন্যান্য জীবেদের ওপরে। ধীরে ধীরে মনে হয়, মানুষের মনে বাসা বাঁধে অহংবোধ। মানুষ নিজেকে এই বিশ্বের সর্বেসর্বা ভাবতে শুরু করে দেয়। সে ভাবে, সে যা যা করে, তাই ঠিক। এই পৃথিবীতে তাকে বাধা দেবার কেউ নেই। কিন্তু,  মানুষ এটা ভুলে যায়, যে, তাকেও সৃষ্টি করেছে একজন, তিনি হলেন এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ড - এর মালিক, স্বয়ং ঈশ্বর।
আমরা রামায়ণে,  পড়েছি রাবণ পুত্র ইন্দ্রজিৎ - এর কথা।  যিনি মেঘের আড়ালে অদৃশ্য হয়ে, যুদ্ধ করতেন বলে,  এনাকে মেঘনাদ বলা হয়ে থাকে। এই অদৃশ্য শত্রু বড় ভয়ংকর চেনা বা দৃশ্যমান শত্রুর চাইতে। যাকে দেখাই যায় না, তার সাথে লড়াই করা যাবে কিভাবে?
এই ভাইরাস হল এক অদৃশ্য শত্রু। এবার এখানে প্রশ্ন উঠতে পারে, যে, এই ভাইরাস আসলে কি? এবার সেই বিষয়ে আমি কিছু আলোকপাত করার চেষ্টা করছি আপনাদের সামনে। ভাইরাস হল একপ্রকার অতিক্ষুদ্র জৈব অণুজীব।
ভাইরাস শব্দের অর্থ হল বিষ। যারা জীবিত কোষের ভিতরেই বংশবৃদ্ধি করতে পারে। এরা হল সরলতম জীব। এসব ভাইরাস, জৈব রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে গঠিত। ভাইরাস কিন্তু মানুষ,  পশুপাখি, উদ্ভিদের নানা রোগের জন্য দায়ী। আমরা অনেক ভাইরাসের নাম শুনেছি। তাদের মধ্যে,  ইবোলা, নিপা, এইডস, এক্ষেত্রে, সর্বশেষ সংযোজন হল করোনা ভাইরাস।
আজ সারা বিশ্ব জুড়ে করোনা ভাইরাস হল এক জীবন্ত আতঙ্কের নাম। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের হিটলারের আতঙ্ককেও যেন ম্লান করে দিচ্ছে এই করোনা আতঙ্ক। এখন যেদিকে তাকাই,  সেদিকেই দেখি, করোনা,
করোনা, শুধু করোনা আতঙ্ক। মানুষ এখন দিশেহারা। কি যে হবে ভবিষ্যতে?  কে জানে?  কার কখন
মৃত্যু হবে কেউ কি জানে?  জানে কি?
পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে,  তা বোঝার জন্য, এখন বিশেষজ্ঞ হওয়ার দরকার নেই। করোনা কিন্তু বিরাট চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে সারা বিশ্বের মানবজাতির কাছে। মানুষের জীবন ও জীবিকা এখন পুরো বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে। মানুষের ভবিষ্যৎকে এক চরম অনিশ্চয়তার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, করোনা, করোনা, অবশ্যই করোনা ভাইরাস।
১৯৬৮ সালে, সারা পৃথিবীতে প্রথম করোনা ভাইরাসের দেখা মিলেছিল। নেচার পত্রিকায় অজ্ঞাত একদল,
ভাইরোলজিস্ট প্রতিবেদন প্রকাশ করে, করোনা ভাইরাসের উপস্থিতির কথা জানান। ল্যাতিনে করোনা শব্দের অর্থ কি জানেন আপনারা? তা হল মুকুট।
মানুষের গর্ব ছিল তার নিজের শক্তিতে, নিজের ক্ষমতার ওপরে। মানুষের সেই গর্বে চরম আঘাত করেছে করোনা ভাইরাস। করোনা পরিস্থিতি, আমাদের দেশ ভারতবর্ষে,  এখন খুব খারাপ। যত দিন যাচ্ছে,  অবস্থা তত খারাপের দিকে এগিয়ে চলেছে। মৃত্যুর পাহাড় হতে চলেছে এই দেশে। চারিদিকে শুধু হাহাকার আর হাহাকার। যা অত্যন্ত হৃদয় বিদারক এক ব্যাপার।
তবে, মানুষ কখনো ভাবেনি, যে, তার জীবনে এভাবে অনিশ্চয়তা নেমে আসবে, এক ভাইরাসের জন্য, ভাবা যায়! এক ক্ষুদ্র ভাইরাস মানুষের কর্তৃত্বকে খর্ব করতে উদ্যত। এখন মানুষের সামনে শিরে সংক্রান্তি ব্যবস্থা! 
তবে, একথা সত্যি, যে, মানুষের জীবনে আজ ঘোর অমানিশার অন্ধকার নিয়ে এসেছে, এক অদৃশ্য শত্রু, তার নাম করোনা, করোনা, অবশ্যই করোনা ভাইরাস।



শিবব্রত গুহ
কোলকাতা, পশ্চিম বঙ্গ, ভারত

 

এই লেখকের অন্যান্য লেখা



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top