সিডনী সোমবার, ১২ই এপ্রিল ২০২১, ২৯শে চৈত্র ১৪২৭


নৈবেদ্য : ডঃ গৌতম সরকার


প্রকাশিত:
৩০ মার্চ ২০২১ ১৩:১৮

আপডেট:
১২ এপ্রিল ২০২১ ১১:৪৯

 

আরে ..কি যে বলেন দাদা...
নারী মানেই ভোগ্য !

তা নয়তো কি....ভোগের জিনিস ভোগ্য ছাড়া আর কি?

--মানে, আপনি ঠিক.....

আমি ঠিকই বলছি। যুগ যুগ ধরে নারীকে ভোগ্য হিসাবেই দেখে এসেছে-
আমাদের ঠাকুরদারা, বাবারা, আমরা……..

কি যা তা বলছেন দাদা.....প্রেম বলে কিছু নেই !
প্রেম আর ভোগের মধ্যে...আপনি ভোগ অর্থে রেপের কথা বলছেন....বিবাহিত স্ত্রীকে কেউ রেপ করে !

আরে ছো....! শুয়ে থাকা স্ত্রী শরীরের উপর পুরুষমানুষ উপনীত হলে প্রেম আর রেপ মিলেমিশে সব এক হয়ে যায়।
কি হল...মানে লাগল শিক্ষিত শহুরে লাটসাহেবের ....মানে না মনে !
আরে প্রেম ভালোবাসা হলো ওই কবি-লেখকদের ঢাল-তরোয়াল।
আচ্ছা শোন, ঠাকুরের ভোগ হয়...

ভোগের নিমিত্তে যেগুলো নিবেদন করা হয় ....তারা তো জেনেই যায় পূজো শেষে তাদের পাঁচজনের মধ্যে বিলি করে দেওয়া হবে। আর সবচেয়ে বড় বারকোশের ওপর সাদা ধবধবে চিনির নাড়ুটার ওপর সবার চোখতো আগে গিয়ে পড়বেই..... আরে এটাই তো ধর্ম
কি হল বাবুমশাই ! বোমকে গেলে যে !
তোমরা লেখো ? পূজোর নৈবেদ্যের দুঃখের কথা... মিছিল করো...ধর্ণা দাও…!

হুঁ... বড় বড় বুকনি ....যুগ যুগ ধরে চলে আসা সনাতনি নিয়ম এমনি এমনি চলে আসছেনা.... প্রকৃতিই সৃষ্টি করেছে নারীদের স্থান নিচে, পুরুষমানুষের ওপরে; এ নিয়মেই সৃষ্টিরহস্য লুকিয়ে আছে....তুমি কোন দ্রোহ নিয়ে হাজির হলে হে ছোকরা....পাল্টে দিতে এলে কালের নিয়মকানুন !

ভোগের নাড়ুর কথা বলছিলেন না...ওই নাড়ুর দিকে নারীরাও চায়..লোভও পায়...তবে সেটা খিদে মেটানোর জন্য...পেটের খিদে... যৌন খিদে নয়...
এবার আপনার কথাতেই বলি-
পুরুষেরা তাদের জিভ দিয়ে ওই নাড়ুকে চাটতে থাকে....চাটতেই থাকে... একই নাড়ুকে একাধিক জন। লালসার রস গড়ায় চারপাশ দিয়ে...পরের জন ঘেন্না পিত্তি বিসর্জন নিয়ে সেই লালারস চেটে নিয়ে নাড়ুটাকে আবার নতুন করে চাটতে শুরু করে....এইভাবে যুগ যুগ ধরে আপনার পুরুষেরা এই চাটার কাজ করে যাচ্ছে।

কিন্তু লালসা যদি যৌনতা হয় সেটা কিন্তু জানবেন নিম্নগামী---
আপনি তো জানেন কি প্লাবন বয়ে যায় শরীরে...বোধ-বুদ্ধি-চেতনা-লজ্জা হারিয়ে মানুষ পাগল হয়ে ওঠে...নিচে নিচে আরও নিচে নামতে নামতে ওপরে ওঠার পথটাই হারিয়ে ফেলে--

ওই পদ্মফুল পায়ের আঙুল, সুঠাম নগ্ন দুই পা, মল্লিকা গুরুনিতম্ব, অপরাজিতা কটিসন্ধিতে অবগাহনের দুর্নিবার আকর্ষণ, মৃগনাভি, খাজুরাহো বুক ....সুবর্ণরেখা গলা পেরোনোর আগেই যদি আপনার সব প্রতিরোধ ভেঙে পড়ে, ধীরে ধীরে খসে পড়েন শরীরটার ওপরে……..

তারপর ক্লান্তি কাটলে সব শক্তি জড়ো করে ভাস্কর্য শরীর পেরিয়ে যদি মুখের দিকে তাকানোর অবকাশ হয়...
আর সে মুখ হয় যদি হয় আপনার মেয়ের, মায়ের, বোনের---
বিদ্যুতের প্রবল ঝটকায় একসাথে নয়
যখন আপনার শরীরের ধমনী, শিরা-উপশিরাগুলো একটা একটা করে পুড়তে থাকবে, আপনার পোড়া মাংস নিয়ে ভাগাড়ের শেয়াল-শকুনগুলো ছেঁড়াছিঁড়ি করবে--
তখনও কি বলবেন
নারী মানেই ভোগ্য !

 

ডঃ গৌতম সরকার
কলকাতা, পশ্চিম বঙ্গ, ভারত

 

এই লেখকের অন্যান্য লেখা



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top