সিডনী মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট ২০২২, ২৫শে শ্রাবণ ১৪২৯

আমগো কাছে পতাকাই ছিল সব : সালেক খোকন


প্রকাশিত:
১৩ ডিসেম্বর ২০২১ ১১:৩২

আপডেট:
১৩ ডিসেম্বর ২০২১ ১৭:১৫

ছবিঃ যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ওয়ারেন্ট অফিসার শহিদ উদ্দিন ভূঁইয়া

 

চম্পকনগর বাজারের পাশ দিয়েই চলে গেছে পূর্ব দিক বরাবর একটি পাকা রাস্তা। খানিক এগোতেই বদলে যায় আশপাশের দৃশ্য। লাল মাটির আঁকাবাঁকা পথ। মাটি আঁকড়ে দাঁড়িয়ে আছে সারি সারি কাঁঠাল গাছ। রাস্তার পাশের খেত পাকা ধানে ভরা; সোনালী রং লেগেছে তাতে, দমকা হাওয়ার ঝাপটায় মাঝেমধ্যেই তা নুয়ে পড়ছে জমির বুকে। পাখপাখালির কণ্ঠ ভেসে আসছে চারপাশ থেকে। এমন মনোহর দৃশ্যে বিভোর হয়ে একসময় আমরা পৌঁছে যাই গন্তব্যে।
গ্রামের নাম বিষ্ণুপুর। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার এ গ্রামেই বসবাস করছেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ল্যান্স নায়েক শহিদ উদ্দিন ভুইয়া। এ বীর মুক্তিযোদ্ধার কথা শুনি ঢাকায় বসবাসরত এ গ্রামেরই সন্তান সরকার জাবেদ ইকবালের মুখে। আগ্রহী হতে তিনিই আমাদের ঠিকানাটি দিয়ে সাহায্য করেন।
‘কমান্ডারের বাড়ি’ কোথায়?
প্রশ্ন শুনেই বিষ্ণুপুরের মধ্যবয়সী এক যুবক আগ্রহ নিয়ে দেখিয়ে দেন উত্তর পাড়ায় মুক্তিযোদ্ধা শহিদ উদ্দিনের বাড়ি। অতঃপর আমরা তাঁর মুখোমুখি হই।
ফোরকান উল্লাহ ভুইয়া ও মালেকান্নেছার পঞ্চম সন্তান শহিদ উদ্দিন ভুইয়া। লেখাপড়ায় তাঁর হাতেখড়ি বিষ্ণুপুর প্রাইমারি স্কুলে। অতঃপর ষষ্ঠ শ্রেণিতে তিনি ভর্তি হন মিরাশানি পলিটেকনিক একাডেমি হাই স্কুলে। ওখান থেকেই তিনি মেট্রিক পাস করেন ১৯৬৪ সালে।
শৈশব ও কৈশোরের নানা ঘটনাপ্রবাহ আজও উদ্দিপ্ত করে শহিদ উদ্দিনকে। স্মৃতি হাতড়ে তিনি জানালেন সেসব দিনের কথা।
“তহন ফুটবল খেলতাম। মেরাশানি হাই স্কুল টিমের গোলকিপার ছিলাম। বন্ধু আলিম, মন্নাফ, বশির উদ্দিন, আবুল কাশেমের কথা খুব মনে পড়ে। কাশেমের বাড়ি ছিল মুকুন্দপুর। একবার তার খুব অসুখ হয়। তহন এইটের ক্লাস মনিটর আমি। ক্লাস ভাইঙা একদিন ওরে দেখতে গেছিলাম। ফেরার পথে মুকুন্দপুর রেলস্টেশন থাইকা ট্রেন ধরি। আজমপুর স্টেশনে নামার সময় হ্যান্ডেলে ধইরা দৌঁড়াইয়া সামনের দিকে লাফ দিয়া নামি আমরা। কিন্তু মন্নাফ ডাইরেক্ট জাম্প দিয়াই চাকার নিচে পইরা যায়। আমি ওরে টাইনা তুলি। তা না হইলে ওইদিন ও মারা যাইত।
“আব্দুর রহমান, শহিদ উদ্দিন, মইজুদ্দিন স্যাররে খুব ভয় করতাম। তহন শিক্ষকরা এইট-নাইন পইরাই লেহাপড়া শিখাইছে। এহন ডিগ্রি পাস শিক্ষকরাও ভালো কইরা পড়াইতে পারে না। তহন শাসন ছিল কড়া। এহন তো শাসনের সিসটেমই নাই।
“আগে মানুষের মইধ্যে আন্তরিকতা ছিল। একের প্রতি অন্যের দরদও ছিল। এহন সেইডা লোপ পাইছে। সবাই খালি ‘ইয়ানফছি’, ‘ইয়ানফছি’ করে। তবে ভালো কিছু লোকের লাইগাই সমাজ টিকা থাকে। ভালো মানুষের সংখ্যাডাও তাই বাড়াইতে হইব।”
মেট্রিকের পরেই শহিদ উদ্দিনের ইচ্ছা কলেজে পড়ার। কিন্তু তাঁর বাবা চান সে ব্যবসা করুক। এ নিয়ে মনোমালিন্য হয়। ফলে একদিন না বলেই তিনি ঘর ছাড়েন, চলে যান কুমিল্লায়। সেখানে লোকমুখে জানতে পারেন আর্মিতে লোক নেওয়ার খবর। কৌতূহলী হয়ে যান কান্দিরপাড় রিক্রুটিং অফিসে। বাকি ইতিহাস শুনি শহিদ উদ্দিনের জবানিতে:
“গিয়া দেহি দুই-তিনশ লোক লুঙ্গি কাছা দিয়া খালি গায়ে দাঁড়াইয়া আছে। অফিসের বারান্দায় আমি। কী হয় দেখতাছি। এমন সময় ক্যাপ্টেন সাব আসেন। আমারে দেইখা কন, ‘তুমি ভর্তি হইবা।’
আমি বললাম, ‘ভর্তি হইতে পারমু, স্যার।’
উত্তর শুইনা উনি আমারে শার্ট-প্যান্ট খুলতে বলেন। আমি তো শরমে মরছি। বলি, ‘স্যার, প্যান্টও খুলতে হইবো!’
কথা শুইনা তিনিও মুচকি হাসলেন। এরপর হাইট, ওয়েট আর বডি চেক কইরাই স্ট্যাম্পের কালিতে পেনসিল দিয়া বুকে নাম্বার লেইখা দিলেন। বাছাইয়ের পর দেওয়া হয় চিটাগাং ইবিআরসিতে। তের-সাত-উনিশশ চৌষট্টিতে জয়েন করছি সৈনিক পোস্টে। আর্মি নম্বর ১৩১৮৪৯৬।”
আগস্টের ৩১ তারিখে শহিদ উদ্দিনকে ট্রেনিংয়ের জন্য পাঠানো হয় পশ্চিম পাকিস্তানে, রিসালপুরে। এক বছর ট্রেনিং শেষে প্রথমে লাহোর ক্যান্টনমেন্টে এবং পরে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের জন্য পাঠিয়ে দেওয়া হয় খ্যামকরন সেক্টরের ইঞ্জিনিয়ার কোরে। দায়িত্ব ছিল ব্রিজ ভাঙা, রাস্তাঘাট ভাঙা, মাইন লেইং অ্যান্ড লিফটিং, ওয়াটার সাপ্লাই প্রভৃতি। যুদ্ধবিরতির পর তাঁকে প্রথমে পোস্টিং দেওয়া হয় সোয়াদ গিলগেটে, ওয়ান ইঞ্জিনিয়ার ব্যাটেলিয়ানে। অতঃপর তিনি কাজ করেন রাওয়ালপিন্ডিতে, ১০১ ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যাটেলিয়ানে।
সত্তরের শেষের দিকে তিন মাসের ছুটিতে শহিদ আসেন দেশে। ২৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৭১। ছুটি শেষ হওয়ায় ওইদিনই তিনি রিপোর্ট করেন ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের কুর্মিটোলা ট্রানজিট ক্যাম্পে।
দেশ তখন উত্তপ্ত, ব্যারাকের ভেতরে আপনারা কি দেখলেন?
শহিদ উদ্দিন বলেন:
“যহন পশ্চিম পাকিস্তানে ছিলাম নির্বাচনে তহন বঙ্গবন্ধু পাস করছে। পাঞ্জাবি সৈনিকেরা আমগো টিটকারি দিয়া কইত, ‘শহিদ উদ্দিন, আবিতো তেরা হাতমে পাওয়ার চালা গিয়া।’
“প্রমোশনের বেলায় পাঞ্জাবিগো আগে দিত। আমগো লোকদের কম দিত। কুর্মিটোলায় ট্রানজিট ক্যাম্পে যখন ছিলাম তহন ভেতরেই দেহি কয়েকটা জায়গায় ট্রান্স করা। এক ব্যাটালিয়ানের ক্যান্টিন থেকে অন্য ব্যাটালিয়ানের ক্যান্টিনে গেলেই ওরা চেক করত। তহনই সন্দেহ করছি কিছু একটা ঘটব।”
৭ মার্চ ১৯৭১। বঙ্গবন্ধু ভাষণ দিবেন রেসকোর্স ময়দানে। সিভিল ড্রেসে শহিদ উদ্দিন সহকর্মী বশিরকে নিয়ে শুনতে যান ঐতিহাসিক সে ভাষণ। এরপর কী ঘটল সে ইতিহাস জানালেন শহিদ উদ্দিন। তাঁর ভাষায়:
“শেখ সাহেবরে দেখার কৌতুহল ছিল। গিয়া দেহি লাখো মানুষ। বঙ্গবন্ধু কইলেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরও দিব…আমি যদি হুকুম দিবার না পারি…’।
“এরপরই তো সব ওলটপালট হইতে থাকে। অসহোযোগের কারণে আমগো রেশন বন্ধ হয়। তহন রেশন আসে পশ্চিম পাকিস্তান থাইকা, কার্গো বিমানে। একদিন এয়ারপোর্টে আমগো নিয়া যায় রেশনের মাল আনতে। দেহি পাকিস্তানি সেনারা ওগো পরিবারের লোকদের বিমান ভর্তি কইরা পাঠায়া দিতাছে। সন্দেহ হইল। স্টাফরোডে মধ্যরাতে তহন ট্যাংক নিয়া ওরা ঘুরাঘুরি করত। ট্রেন বন্ধ ছিল। ১৯ মার্চ তারিখে আমরা ট্রেন পাইলাম। আমি আর বশির তহন বাড়িত চইলা আসি।”
ঢাকায় গণহত্যার খবর শহিদরা পান রেডিওতে। মনে তখন অজানা শঙ্কা। কী ঘটবে কেউ জানে না। আর্মির লোক পাইলে পাকিস্তানি সেনারা তো এমনিই মেরে ফেলবে। শহিদ ট্রেইন্ড সোলজার। চুপ করে বসে থাকতেও পারে না। তাই লড়াই-ই একমাত্র পথ। কিন্ত অস্ত্র ছাড়া লড়বে কীভাবে?
৩১ মার্চ ১৯৭১। কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট থেকে ফোর বেঙ্গল বেরিয়ে এসে অবস্থান নিয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। ক্যাপ্টেন আইনুদ্দিন ছিলেন দায়িত্বে। খবর পেয়ে শহিদ উদ্দিনও জয়েন করেন ওখানে। এরপরই তিনি দেশের স্বাধীনতার জন্য সন্মুখ যুদ্ধ করেন ২ নং সেক্টরের ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আখাউড়ার বিভিন্ন স্থানে।
একটি অপারেশনের কথা জানালেন মুক্তিযোদ্ধা শহিদ উদ্দিন। তাঁর ভাষায়:
“আমরা তহন আখাউড়ায়, ফকিরমোড়া ইরাপুরে পজিশনে। পাকিস্তানি সেনাগো পুরা ব্যাটেলিয়ান ছিল পশ্চিমে। দুপুরের দিকে দেখলাম ওরা আক্রমণের প্রস্তুতি নিচ্ছে। খবরটি সঙ্গে সঙ্গে পৌঁছে দেই মেজর আব্দুস সালেক চৌধুরির কাছে। উনি সবাইরে পজিশনে যাইতে কইলেন। নির্দেশ দিলেন উনি ফায়ার ওপেন না করা পর্যন্ত কেউ যেন ফায়ার না করে। আমি পজিশন নিছি পুস্কুনির পাড়ে।
“পাকিস্তানি সেনারা সোজা রাস্তায় ক্রলিং করে চইলা আসে রেঞ্জের ভিতরে। কিন্তু তবুও স্যার ফায়ার ওপেন করে না। চিন্তায় পইরা গেলাম! হঠাৎ ফায়ারের শব্দ। আমরাও গুলি চালাই। সামনের সারিতে থাকা পাকিস্তানি সেনারা মাডিত পইড়া যায়। তবুও ওরা কাবু হয় না। পেছন থাইকা বলে, ‘আগে বারো, আগে বারো’।
“প্রচণ্ড গোলাগুলি। এরপরই ওরা শেল মারতে থাকে। আমরা তহন টিকতে পারি না। সরে গিয়ে আশ্রয় লই ভারতের মনতলি স্কুলে। ওরা তহন আখাউড়া দখল করে। বাংলাদেশের পতাকা নামায়া পাকিস্তানি পতাকা ওড়ায়। খুব কষ্ট পাইছিলাম ওইদিন। আমগো কাছে পতাকাই ছিল সব।”
এক অপারেশনে গুলিবিদ্ধ হন মুক্তিযোদ্ধা শহিদ উদ্দিন। পাকিস্তানি সেনাদের গুলি তাঁর বুকের বাম পাশে ঢুকে লাং ফুটো করে পিঠ দিয়ে বেরিয়ে যায়। রক্তাক্ত ওইদিনের কথা মনে হলে আজও এ যোদ্ধার দুচোখ সিক্ত হয়।
কী ঘটেছিল ওই দিনটিতে?
খানিক নীরবতা। অতঃপর তিনি বলতে থাকেন রক্তাক্ত ওইদিনের আদ্যপান্ত:
“মনতলি স্কুল থাইকা আমাগো পাঠায় কামথানা বিওপিতে। ওখানে শালদা নদীর উত্তর পাশে পাকিস্তানিরা পজিশনে ছিল। ওগো পজিশনে অর্তকিত হামলা করতে হইব। আমি, সউদ মিয়া, হামিদ, কালামসহ ছয়জন। তিনটা দলে ভাগ হইয়া ওগো বাংকারের সামনে গিয়া মুখোমুখি ফায়ার করমু। ওরা মনে করব এনিমি সামনে আছে। তহন উত্তর দিকের রেল লাইনের নিচ দিয়া একটা কালভার্ট হইয়া আমগো আরও ৩০-৩৫ জন পেছন দিক দিয়া ওগো বাংকার চার্জ করব। সন্ধ্যায় এইডাই পরিকল্পনা হয়।
“৪ জুন ১৯৭১। রাত তহন সাড়ে ৩টা। মুখোমুখি হইয়াই আমরা ফায়ার করি। পাকিস্তানি সেনারা তহন টুইঞ্চ মর্টারের ফায়ার করে। সব গোলা গিয়া পড়ে আমগো পেছনে। প্রচণ্ড গোলাগুলি চলছে। আমি ছিলাম ধানখেতের আইলে। দুই পাশে সউদ মিয়া, আবুল কালাম আর হামিদ। পাকিস্তানিরা একটু উঁচুতে। হঠাৎ বুকে একটা ধাক্কা খাইলাম। তহনও কিছু বুঝি নাই। মনে হইছে বুকের ডান পাশে একটা গুঁতা লাগছে। ভাবছি লাঠির গুঁতা। কিছুক্ষণ পরেই আমগো লোকেরা পেছন থাইকা ওগো ওপর আক্রমণ করে। গোলাগুলি তহন শেষ। কোনো আওয়াজও নাই।
“তহন আমরা আসি গৌরাংগোলা গ্রামের মসজিদের পাশে। খালি গা। বুক দিয়া রক্ত পড়তেছিল। গাও শিরশির করছে। জোকে ধরছে নি! আঙ্গুল দিয়া ধরতেই দেহি বুকের ভিতরে আঙ্গুল ঢুইকা যায়। তহনই বুঝছি গুলি খাইছি। মনে তহন মৃত্যুভয়!
“এইহানে যদি মরি তাইলে তো ডেডবডিও কেউ পাইব না! এই ভাইবা এলএমজিডা হাতে নিয়া দৌড় দেই বর্ডারের দিকে। কিছুদূর যাওয়ার পরই চোখ ঝাপসা হইয়া আসে। একটা মাঠে পইরাই কলেমা পড়ি। মনে হইছে মারা যামু। গলা শুকাইয়া কাঠ। নিঃশ্বাসও নিতে কষ্ট হইতেছে। বুকের ওপর বাম হাতটা ছিল। সেইডা পেছনে নিতেই জমে থাকা পানির স্পর্শ পাই। ওই পানি মুখে দিতেই দমডা ফিরা আসে। আমি যে বাইচা থাকমু এইডা স্বপ্নেও ভাবি নাই ভাই। একাত্তরের পরে বোনাস লাইফ নিয়ে চলতাছি।”

 ছবিঃ মুক্তিযোদ্ধা ওয়ারেন্ট অফিসার শহিদ উদ্দিনের অনুকুলে সিএমএইচ-এর তৎকালীন ছাড়পত্র
চিকিৎসা নিলেন কোথায়?
“এক বাড়ির দরজার একটা পাল্লা খুইলা সহযোদ্ধারা আমারে তুইলা নেয়। গ্রামের এক ডাক্তার প্রথমে আমারে দেখে। জ্ঞান তহনও ছিল। উনি শুধু বললেন,‘আশা নাই’।
তবুও কোরামিন আর একটা ইনজেকশন দিতেই শরীরটা গরম হইল। এরপরই আমারে নেওয়া হয় আগরতলা জিবি হাসপাতালে। রক্তে হাসপাতালের ফ্লোর ভাইসা গেছিল। অপারেশন থিয়েটারে ডাক্তার রতিন দত্তর হাত ধইরা হাউমাউ কইরা কাইন্দা কইছিলাম, ‘যদি মইরা যাই তাইলে আমার ডেডবডিটা বাংলাদেশে পাঠাইয়েন স্যার।’
“উনি কিছু কইলেন না। আমার মুখের দিকে শুধু এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিলেন। পাকিস্তানি সেনাগো গুলিটি আমার বুকের ডান পাশ বিদ্ধ করে লাং ফুটো কইরা দেয়। অপারেশনে লাংয়ের কিছু অংশ কাইট্টা ফেলতে হয়। তহন রক্তও লাগছিল। তৎকালীন এমপিএ লুৎফুল হাই সাচ্চু আমারে রক্ত দিছে। তাঁর রক্তেই আজ বাঁইচা আছি।”
যে দেশের জন্য রক্ত দিলেন স্বপ্নের সে দেশ পেয়েছেন কি?
মুক্তিযোদ্ধা শহিদ উদ্দিনের উত্তর:
“পেলাম কোথায়? চাইছিলাম সুন্দর একটা দেশ। যেখানে হত্যা, রাহাজানি, অন্যায় থাকব না। খাই খাই থাকব না। কিন্তু সে দেশ তো হয় নাই। মানুষ একজনরে ভোট দিয়া চেয়ারম্যান করে। কিন্তু সে ভোটের মূল্যায়নই তো হয় না। বিচারে সে অন্যায়কে দমন করবে। এটাই তো হওয়ার কথা। আপনেরে বিচারের দায়িত্ব দিলাম। আপনি কিছু নিয়াটিয়া বিচার হালকা করে দিলেন। এইসব এহন গ্রামগঞ্জেও চলতাছে।”
কী করা দরকার?
“এক নম্বর কথা হইল সৎ থাকতে হইব। শুধু নেতাই না, সবাইকেই। আপনি অর্থলোভী হইবেন কিন্তু অন্যের সততা চাইবেন এইটা কিন্তু হইব না। ঠিকাদার উন্নয়নমূলক কাজ করে। দেখেন কত পারসেন্ট কাজ হয়। কত পারসেন্ট দিতে হয়। তাইলে ভালো কাজ হইব কেমনে? ন্যায়পরায়ণ হইতে হইবো। সঠিক বিচার করতে হইব। তা না হলে শত উন্নয়নেও দেশ এগোবে না।’
স্বাধীনতা লাভের পর পাকিস্তান ফেরত বাঙালি সেনাদের নিয়ে সেনাবাহিনী গঠন প্রসঙ্গে এ যোদ্ধা অকপটে তুলে ধরেন নিজের মতামত:
“যুদ্ধবিধস্ত দেশ গড়ার উদ্যোগ নিয়েছিলেন শেখ মুজিব। পরিস্থিতিগত কারণে বাঙালি সেনারা পশ্চিম পাকিস্তানে আটকা পড়েছিল। তাই পাকিস্তান ফেরত বলেই কোনো বাঙালি সেনা দেশবিরোধী হবেন এই ভাবনাটা মোটেই ঠিক নয়। আমি মনে করি এইটা বঙ্গবন্ধুর বিচক্ষণ সিদ্ধান্ত ছিল। বরং আগে সেনাবাহিনীতে তেমন রাজনীতি ছিল না। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সেনাবাহিনীতেও রাজনীতি ঢুকে গেছিল।”
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেন জিয়াউর রহমান। তাঁর মন্ত্রিসভায় স্থান পায় যুদ্ধাপরাধী ও রাজাকাররা। সরকারি প্রটোকল মেনে সে সময় রাজাকারদেরই স্যালুট দিতে হয়েছিল মুক্তিযোদ্ধা শহিদ উদ্দিনকে। সে সময়কার কষ্টের কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন:
“কষ্টের কথা বুঝাইতে পারমু না ভাই। অর্ডারের বাইরে যাওয়ার সুযোগ ছিল না। তহন ভাবতাম রক্ত দিয়া কেন পতাকা আনলাম! ওগো সালাম দিতে বুকটা তো ফাইটা যাইত।”
এত বছর পরও মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা বাড়ে কেন?
মুচকি হেসে এই সূর্যসন্তান বলেন:
“দায়ী তো আমরাই। এ ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আমি। যারা জীবনে কোনোদিন যুদ্ধের কথা কয় নাই এমন লোকও এহন কয় মুক্তিযুদ্ধ করছে। আমি ওগো ফরমে স্বাক্ষর দেই নাই। দেশের সাথে এমন গাদ্দারি করতে আমি পারমু না। এজন্য আমার বিরুদ্ধেই ওরা অভিযোগ দিছে। এহন অমুক্তিযোদ্ধাগো শক্তিই বেশি। সরকার কী মনে কইরা নতুন আবেদন নিতাছে, মাথায় ঢুকে না। যত সুযোগ দিবেন মুক্তিযোদ্ধাগো তালিকা তত ভুয়া হইবো। তাই এই তালিকা বন্ধ হওয়া উচিত।”
হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে আওয়ামী লীগের চেতনা কখনও মিলবে না বলে মনে করেন মুক্তিযোদ্ধা শহিদ উদ্দিন। হেফাজতের সঙ্গে সরকারের একধরনের আপসকে তিনি রাষ্ট্রের জন্য ক্ষতিকর বলে অভিহিত করেন।
“প্রথম কইছেন, ‘তেঁতুল হুজুর’, ‘তেঁতুল হুজুর’। মিল্লা যাইয়া কন, ‘মিষ্টি হুজুর’, ‘মিষ্টি হুজুর’। তাইলে তো হইব না। তেঁতুল হুজুররা সঙ্গে থাকলে কিন্তু বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা হইব না। প্রকাশ্য শক্রও ভালো। সর্তক হওয়া যায়। কিন্তু ওরা তো ভেতরে ঢুইকা সুযোগ পাইলেই ইঁন্দুরের মতো কাটব। তাই হুজুরগো ওপর নির্ভরশীলতা আমগো কমাইতে হইব।’
দেশ কেমন চলছে?
“শেখের মাইয়া ভালো উন্নতি করছে। আগে তো বিদুৎ পাইতাম না। এহন ঘরে ঘরে বিদুৎ। রাস্তাঘাটগুলা পাকা হইছে। যোগাযোগব্যবস্থাও উন্নত। কিন্তু ঘরে ঘরে মাদক ঢুকে গেছে। মদ, গাঁজা, ইয়াবায় আসক্ত হচ্ছে যুবকরা। মাদকের বিষয়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে কঠোর সিদ্ধান্ত নিলে দেশ আরও এগোবে।”
শত সমস্যা কাটিয়ে নতুন প্রজন্মের হাত ধরেই এদেশ একদিন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা হবে– এমনটাই বিশ্বাস যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ল্যান্স নায়েক শহিদ উদ্দিন ভুইয়ার। পাহাড়সম আশা নিয়ে তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন:
“দেশপ্রেম মানুষের শক্তি। পতাকা তোমার পরিচয়। তোমার পরিচয়টাই তুমি সবার ওপরে তুলে ধরো। মাদক থেকে দূরে থেক। মনে রেখ তোমার ভবিষ্যৎ নষ্ট করতেই মাদকের সৃষ্টি।”

ছবি: সালেক খোকন

 

সালেক খোকন
লেখক ও গবেষক
www.salekkhokon.net

 

এই লেখকের অন্যান্য লেখা



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top