সিডনী বৃহঃস্পতিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৩ই ফাল্গুন ১৪২৭


ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ায় যাত্রা শুরু করেছে 'ঢুয়াওয়া'


প্রকাশিত:
২৫ জানুয়ারী ২০২১ ১২:৫৩

আপডেট:
২৫ জানুয়ারী ২০২১ ১৩:০১

রিপোর্ট: মোশারফ হোসেন নির্জন

 

প্রবাসে স্বদেশীয় মানুষদের খুঁজে পাওয়া, স্বান্নিধ্যে আসা ঢের আনন্দের; তবে এই মাত্রাটা আরেকটু বেশী যখন যখন নির্দিষ্ট কোন সূত্র থেকে কারো সাথে পরিচিতি লাভ করা যায়, আপনজনদের তালিকাটা দীর্ঘ করা যায়। আর এমন সুযোগ করে দিতে সম্প্রতি আনুষ্ঠানিক ভাবে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ায় যাত্রা শুরু করেছে ঢুয়াওয়া (DUAAWA) নামের একটি সামাজিক সংগঠন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নিয়ে এই প্লাটর্ফমটি দাড় করিয়েছেন পার্থে বসবাসরত ঢাবিরই কিছু স্বেচ্ছাসেবী।  

জানা যায়, সম্প্রতি ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ায় উডলুপাইন কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত হয় এই সংগঠনটির প্রথম মিলনমেলা। বাংলাদেশীদের সকল ধরণের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে এই অনুষ্ঠান দিয়ে নিজেদের সংহতির বহি:প্রকাশ ঘটান ঢুয়াওয়ার সদস্যরা।

সন্ধ্যা গড়াতেই উৎসুক অ্যালামনাই সদস্যরা পরিবার সহ হাজির হন। সাদা,লাল,নীল শাড়ী পরিহিত নারীরা আয়োজিত স্থলকে রাঙ্গিয়ে তুলেন; আবহ দেখে মনে হয় যেন এক টুকরো বাংলাদেশ। অন্যদিকে ভদ্রলোকের পোশাকে কর্পোরেট লুক নিয়ে আসেন পুরুষ অতিথিরা। আয়োজনে আরো দেখা মেলে লাল সাদার আদলে ঢাবি’র বাস, সৌন্দর্য্মন্ডিত সেলফিফ্রেম ও মধূর রেস্তোরা ফটো-জোন।

অনুষ্ঠানে’র শুরুতেই আমন্ত্রিত অতিথিদের বরণ করে নেন স্বেচ্ছাসেবীরা। তারপর পরিচিতি পর্বে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রবীণদের অনেকে স্মৃতিচারণে অংশ নেন। টিএসসি, ক্যাম্পাস ও হল লাইফের স্মৃতি রোমন্থনে ক্ষণিকের জন্য ফিরে যান চার-পাচ দশকের আগের জীবনে। প্রবাসে এ যেন অন্য রকম আনন্দের দেখা।

দিত্বীয় পর্বে দেশীয় ঘরানার খাবার দিয়ে আতিথিয়তা করা হয়। হরেক রকম খাবারের সমন্বয়কে সাধুবাদ জানান আমন্ত্রিতরা। তারপর শুরু হয় হৈ হুল্লুড় আড্ডা। সেলফি আর গ্রুপ ফটোতে মেতে উঠেন অনেকে। মাত্র কয়েক ঘন্টার আড়ম্বতা মন ছুঁয়ে যায় অংশ গ্রহণকারীদের। অনুষ্ঠানটির সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে কাজ করেন ড. মো: মোয়াজ্জেম হোসেন,  তিনি  অষ্ট্রেলিয়ার মারডক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক । স্বেচ্ছসেবী হিসেবে আরও যোগ হন মেজবাহ ভূইয়া, বিদ্যুৎ বনিক, সারওয়ার হোসেন, আনিসুর রহমান কাজল, অমিত, মাসুদ, রাফি, নির্জন। অনুষ্ঠানে স্বেচ্ছসেবীসহ সকল সদস্যরা আগামীতে আরো বড়পরিসে আয়োজন করার কথা ব্যক্ত করেন এবং কল্যাণমূলক কাজের মাধ্যমে সংগঠনটিকে বাঁচিয়ে রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হন।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top